You are here
Home > Don't Miss > শরীর ও স্বাস্থ্য > রসুনের উপকারিতা: মানবদেহের রক্ষাকবচ হিসেবে রসুনের গুন

রসুনের উপকারিতা: মানবদেহের রক্ষাকবচ হিসেবে রসুনের গুন

রসুনের উপকারিতা

মশলাদার খাবার রান্নার সময় একটুখানি রসুনের উপস্থিতি রান্নার স্বাদ দ্বিগুণ মাত্রায় বাড়িয়ে দেয়। রসুনের উপকারিতা কেবল মাত্র রন্ধনশিল্পে স্বাদবর্ধক হিসেবেই নয় এর নানাবিধ পুষ্টি গুনের কারণ প্রাচীন চিকিৎসা শাস্ত্রেও সাদরে গৃহীত হয়েছে। রসুন আসলে বড় মাপের প্রতিষেধক তথা অ্যান্টিবায়োটিক হিসেবে মানব জীবনে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা নেয়। তাই শুধু মাত্র ভারতীয় সভ্যতায়ই নয় সুপ্রাচীন মিশরীয়‚ ব্যাবিলনীয়‚ গ্রিক‚ রোমান এবং চৈনিক সভ্যতায় রসুনের উপকারিতা জেনে এ কে ওষুধ হিসেবে ব্যবহার করা হত বলে জানতে পারা যায়।

এই রসুনের একাধিক গুন। আসুন আজ তাহলে দেখে নেওয়া যাক রসুন কতটা উপকারী ও কি কি রোগ নিরাময়ে বিশেষ ভূমিকা পালন করে।

  • প্রাকৃতিক অ্যান্টিবায়োটিক রূপে রসুনের উপকারিতা
  • পেটের সমস্যায় রসুনের গুন
  • ঠান্ডা লাগার সমস্যা থেকে সমাধান পেতে রসুনের উপকারিতা
  • হাই-ব্লাড প্রেসার ও কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রণ করতে রসুনের সহায়তা জনক গুনাগুন
  • রূপচর্চায় রসুনের উপকারিতা
  • হাড়ের মজবুতি করনে ও স্নায়ুর সমস্যার সমাধানে রসুনের উপকারিতা
  • যৌনশক্তি বৃদ্ধি ও হরমোনাল সমস্যা সমাধানে রসুন

তবে চলুন দেখেনি চট করে এইসব উপকারিতার বর্ণনা।

১) প্রাকৃতিক অ্যান্টিবায়োটিক রূপে রসুনের উপকারিতা:

গবেষণায় দেখা গেছে, প্রত্যেক দিন সকালে উঠে খালি পেটে যদি এক কোয়া করে রসুন খাওয়া যায় তবে এটি শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধি করতে সহায়তা করে।তা ছাড়াও রসুনের মধ্যে উপস্থিত থাকে বিভিন্ন ভিটামিন, মিনারেল। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য ম্যাঙ্গানেজ ,ভিটামিন B6, ভিটামিনC,ক্যালসিয়াম‚পটাশিয়াম কপার,ফসফরাস‚ আয়রন,প্রভৃতি যা মানব দেহের প্রয়োজনীয় খনিজ উপাদান গুলি পূরন করতে সহায়তা করে।এছাড়াও শরীরকে ডি-টক্সিফাই করতে রসুনের উপকারিতা অত্যন্ত কার্যকরী ভূমিকা পালন করে থাকে।

২) পেটের সমস্যায় রসুনের গুন:

আমাদের দৈনন্দিন সমস্যার মধ্যে অন্যতম হল গ্যাস, অম্বল ,বদহজম,পেটে ফাঁপা প্রভৃতি।এই ছাড়াও গ্যাসট্রিসাইট, লিভার ও অন্ত্রের সমস্যা সমাধানের মোক্ষম দাওয়াই হল রসুন।এক্ষেত্রে চার পাঁচ ফোঁটা রসুনের রস ঠান্ডা জলে মিশিয়ে রোজ সকালে খেলে উপকার পাবেন। যাঁরা অতিরিক্ত মদ্যপান করে পেটের ব্যথায় কষ্ট পান এবং মদের নেশা ছাড়তে পারছেন না তাঁদের জন্য পরামর্শ, রোজ দু কোয়া রসুন গরম ভাতের সঙ্গে খান দেখবেন পেটে ব্যথা সেরে যাবে এবং ধীরে ধীরে মদ্যপানের অভ্যাস ও কমে যাবে।এছাড়াও শিশু ও বয়স্ক দের ক্ষেত্রে অনেক সময় দেখা যায় অপুষ্টির সমস্যায় ভুগছেন তাঁর রসুন বাটা ঘোলের সঙ্গে মিশিয়ে খেলে উপকার পাবেন।

৩) ঠান্ডা লাগার সমস্যা থেকে সমাধান পেতে রসুনের উপকারিতা:

সেই প্রাচীন কাল থেকে আজও বাড়িতে মা-ঠাকুমারা ঠান্ডা লাগা, জ্বর সর্দি-কাশি প্রভৃতি যে কোন সমস্যায় রসুন তেল গরম করে হাতের পায়ের তালুতে প্রয়োগ করে থাকেন। এছাড়াও কাঁচা রসুন খেলে কমন কোল্ড, জ্বর তাড়াতাড়ি সেরে যায়। এর মধ্যে থাকা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বিভিন্ন ভাইরাল ফিভার এর সঙ্গে লড়াই করতে সহায়তা করে।এছাড়াও রসুনের উপকারিতা বুকে জমে থাকা সর্দি নির্মুল করতেও সক্ষম।

৪) হাই-ব্লাড প্রেসার ও কোলেস্টেরল নিয়ন্ত্রণ করতে রসুনের সহায়তা জনক গুণাগুণ:

উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণ করতে রসুনের উপকারিতা অপরিহার্য।যাঁরা উচ্চ রক্তচাপ জনিত সমস্যায় ভুগছেন তাঁরা প্রতি দিন সকালে এক কোয়া কাঁচা রসুন চিবিয়ে খেতে পারেন অথবা ভাতের সঙ্গে খেতে পারেন অনেক উপকার হবে।
নিয়মিত রসুন খেলে শরীরে গুড কোলেস্টেরল এর মাত্রা বৃদ্ধি পায় এবং ব্যাড কোলেস্টেরল এর মাত্রা হ্রাস পায়।

৫) রূপ চর্চায় রসুনের উপকারিতা:

রসুন অ্যান্টি ভাইরাল এবং অ্যান্টি ব্যাকটেরিয়াল পদার্থ সমৃদ্ধ হওয়ায় স্কিন ইনফেকশন, ব্রণ, ফুসকুড়ি প্রভৃতি নিরাময়ের সহায়তা করে।এছাড়াও বিভিন্ন পোকামাকড়, বিছে ,বোলতার কামড়ে জ্বালা, যন্ত্রনা,বিষক্রিয়া রোধ করতে রসুন বাটা প্রয়োগ খুবই উপকারে আসে।রসুনে অ্যান্টি এজিং উপাদান থাকায় ত্বকের রিংকেল এজিং এফেক্ট দূর করে।
চুলের গ্রোথ বৃদ্ধি এবং খুসকি নির্মূল করতে রসুনের জুরি মেলা ভার।অকাল বার্ধক্য রোধে রসুনের উপকারিতা অবিস্মরণীয়।প্রতি দিন চার কোয়া রসুন বাটা মধুর সঙ্গে সেবন করলে অকাল বার্ধক্য থামিয়ে দেওয়া যায়।

৬) হাড়ের মজবুতি করনে ও স্নায়ুর সমস্যার সমাধানের রসুনের উপকারিতা:

বার্ধক্য জনিত কারণে ধীরে ধীরে হাড়ের জোর কমতে থাকে। হাড়ের ক্ষয় হতে শুরু করে। মহিলা দের ক্ষেত্রে এ সমস্যা বেশি লক্ষনীয়। তবে বিভিন্ন পরীক্ষা নিরীক্ষায় দেখা গেছে প্রত্যেক দিন যদি ২ গ্রাম করে রসুন খাওয়া যায় তাহলে মহিলাদের দেহে ইস্ট্রোজেন হরমোনের মাত্রা বাড়িয়ে দেয় ।ফলে হাড় সংক্রান্ত সমস্যা অনেকটা কমে যায় । এছাড়াও শিশু দের হাড় শক্ত ও মজবুত করতে রসুন তেল মাখানো র রীতি সেই প্রাচীন কাল থেকে চলে আসছে।যা সত্যিই কার্যকরী।

৭) যৌনশক্তি বৃদ্ধি ও হরমোনাল সমস্যা সমাধানে রসুন:

রসুনের মধ্যে অধিক পরিমাণে কামউদ্দীপক পদার্থ বর্তমান থাকায় প্রাচীন কালে মুনী ঋষিরা আহার্য্য তালিকা থেকে রসুনকে বর্জন করতেন। অনিয়ন্ত্রিত জীবন যাত্রা, মানসিক চাপ, ধূমপান অ্যালকোহল সেবন প্রভৃতি নানা কারণে যৌনক্ষমতা হ্রাস পেতে থাকে ।এই সমস্যা সমাধান ম্যাজিকের মতো কাজ করবে রসুন।নারী পুরুষ নির্বিশেষে প্রতিদিন দু কোয়া রসুন বাটা র সঙ্গে আমলকির রস সেবন করলে যৌন শক্তি বৃদ্ধি ঘটবে।মহিলা দের পিরিয়ডের সমস্যা সমাধানের সহায়তা করে।এবং যে সমস্ত মহিলা দের মোনোপজ হয়ে গেছে তাঁরাও নিয়মিত রসুন খেলে উপকার পাবেন।

আরও পড়ুন – লেবুর উপকারিতা এবং গুণাগুণ সংক্রান্ত সকল কিছু জানুন এক নিমেষে

এবার বুঝতে পারলেন তো রসুনের উপকারিতা কত। তাই খাদ্য তালিকায় কোনো না কোন ভাবে রসুন অতি অবশ্যিক ভাবে যুক্ত করুন।আর উপকার পেতে প্রত্যেক দিন খান, অতি অবশ্যই ফল পাবেন।

আশা করি আলোচনাটি সবার অনেক উপকারে লাগবে ।কেমন লাগল অবশ্যই জানাবেন। পরবর্তীতে আরও ভেষজ সম্পর্কিত তথ্য পেতে আমাদের সঙ্গে থাকুন।ভালো থাকুন এবং সুস্থ থাকুন।

ধন্যবাদ।

Leave a Reply

Top