You are here
Home > Don't Miss > বিনোদন > ব্যবসায়ী লোন: সবচেয়ে কম সুদে লোন কোথায় এবং কীভাবে পাবেন

ব্যবসায়ী লোন: সবচেয়ে কম সুদে লোন কোথায় এবং কীভাবে পাবেন

সবচেয়ে কম সুদে ব্যবসায়ী লোন

নিজের ব্যবসা শুরু করবেন ভাবছেন? কিন্তু ক্যাপিটাল বা মূলধনের অভাব তাই শুরু করতে পারছেন না? আপনার স্টার্ট আপ আপনি সহজেই শুরু করতে পারেন ব্যবসায়ী ঋণ বা বিজনেস লোন নিয়ে। সাধারণ নাগরিক থেকে একজন বিশিষ্ট বিজনেস টাইকুন হওয়ার স্বপ্ন আপনি অতি সহজেই বাস্তবায়িত করতে পারবেন। কীভাবে? ব্যবসায়ী লোন নিয়ে। কিন্তু কোথা থেকে ঋণ নেবেন এবং কীভাবে? আসুন, জেনে নিন কিছু সহজ উপায়। এবং সবচেয়ে কম সুদে লোন কোন ব্যাংক দিচ্ছে তাও এই আর্টিকেলে আপনারা জানতে পারবেন।

প্রধানমন্ত্রী লোন:

কেন্দ্রীয় সরকার ১৯৯৩ সালে প্রধানমন্ত্রী রোজগার যোজনা নামে এক প্রকল্প শুরু করে। শিক্ষিত বেকার যুবক ও যুবতীরা এই প্রকল্পে আবেদন করে ঋণ নিয়ে বাণিজ্য শুরু করতে পারেন। এই প্রকল্পে আবেদনকারী ব্যবসার জন্য এক লাখ টাকা ব্যবসায়ী লোন পাবে। যদি একাধিক বেকার যুবক-যুবতী একসঙ্গে কোনও প্রকল্প শুরু করে তবে ১০লাখ টাকা পর্যন্ত ঋণ পাবে।

কারা এই প্রকল্পে আবেদন করতে পারেন? ১৮ থেকে ৪০ বছরের যে কোনও বেকার নাগরিক আবেদন করতে পারেন। তফসিলি জাতি ও উপজাতিদের ক্ষেত্রে বয়সের ছাড় আরও পাঁচ বছর। তবে যদি আবেদনকারীর পারিবারিক আয় চল্লিশ হাজার টাকার কম হয়, তবেই ঋণ পাওয়া যাবে। দশম শ্রেণি উত্তীর্ণ বা ফেল, আই টি আই উত্তীর্ণ বা সরকারি সাহায্যপ্রাপ্ত কোনও কারিগরি ক্লাসে অন্তত ছয় মাস ক্লাস করেছে, এমন যে কেউ এই প্রকল্পে আবেদন করতে পারেন।

মুখ্যমন্ত্রী লোন:

মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় এক নতুন প্রকল্প চালু করেছেন ‘কর্ম সাথী’ নামক। এই প্রকল্পের দ্বারা আবেদনকারী পেতে পারেন দুই লক্ষ টাকা পর্যন্ত ঋণ।

কারা এই প্রকল্পে আবেদন করতে পারেন? ১৮ থেকে ৫০ বছর বয়সী যে কোনও ব্যাক্তি এই প্রকল্পের জন্য আবেদন করতে পারেন। এই উদ্যোগের একটিই উদ্দেশ্য— বেকার যুবক-যুবতীরা যাতে ক্ষুদ্র এবং মাঝারি ব্যবসা করে নিজেদের পায়ে দাঁড়াতে পারে।

সবচেয়ে কম সুদে লোন:

এত গেল সরকারের প্রকল্প। এবার আসুন জেনে নিই কোন প্রাইভেট ব্যাংকগুলোর কথা। বিশেষজ্ঞরা জানাচ্ছেন যে প্রাইভেট ব্যাংকগুলির ক্ষেত্রে পার্সোনাল লোন এড়িয়ে চলাই ভাল। কারণ অন্যান্য লোন যেমন গোল্ড লোন, কোনও অ্যাসেট লোন, কিংবা এই জাতীয় কোনও সিকিওরড লোনের চেয়ে পার্সোনাল লোনের ক্ষেত্রে সুদের হার অনেক বেশি। কিন্ত গ্রাহকের কাছে যদি কোনও সিকিউরড অ্যাসেট না থেকে থাকে? তখন উপায় একমাত্র পার্সোনাল লোন। আসুন দেখে নিই কোন ব্যাংক কত সুদের হারে পার্সোনাল লোন দিচ্ছে।

  • ইউনিয়ন ব্যাংক ৮.৯০ শতাংশ সুদের হারে লোন দিচ্ছে।
  • পাঞ্জাব ন্যাশনাল ব্যাংক দিচ্ছে ৮.৯৫ শতাংশ হারে লোন দিচ্ছে।
  • ইন্ডিয়ান ব্যাংক দিচ্ছে ৯.২০ শতাংশ সুদের হারে লোন দিচ্ছে।
  • স্টেট ব্যাংক অফ ইন্ডিয়া ৯.৬০ শতাংশ সুদের হারে লোন দিচ্ছে।
  • ব্যাংক অফ মহারাষ্ট্র ৯.৭০ শতাংশ সুদের হারে দিচ্ছে লোন।
  • সেন্ট্রাল ব্যাংক ৯.৮৫ শতাংশ সুদের হারে লোন দিচ্ছে।
  • ইউকো ব্যাংক ১০.০৫ শতাংশ সুদের হারে লোন দিচ্ছে।
  • ব্যাংক অফ বারোদা ১০.২৫ শতাংশ সুদের গড়ে দিচ্ছে পার্সোনাল লোন।
  • এইছ ডি এফ সি ব্যাংক ১০.৭৫ শতাংশ সুদের হতে লোন দিচ্ছে।
  • কোটাক ব্যাংক ১০.৭৫ শতাংশ সুদের হারে লোন দিচ্ছে।

অতএব তথ্য বলছে, সবচেয়ে কম সুদে লোন দিচ্ছে ইউনিয়ন ব্যাংক। তার মানে যদি আপনি পাঁচ বছরে পার্সোনাল লোন নেন, পাঁচ লক্ষ টাকার সেক্ষেত্রে আপনার সুদের হার হবে মাত্র ৮.৯০ শতাংশ। এরপর সবচেয়ে কম সুদে লোন দিচ্ছে পাঞ্জাব ন্যাশনাল ব্যাংক দিচ্ছে ৮.৯৫ শতাংশ হারে। এই ব্যাংকগুলো সবচেয়ে কম সুদে লোন দিচ্ছে অতএব দেরি না করে এখুনি বানিজ্য ঋণ নেওয়ার জন্য আপ্লাই করুন।

সহজ লোন:

এই মুহুর্তে যেভাবে সারা দেশে তথা বিশ্বে এই মারণ ভাইরাসের প্রকোপ বেড়েছে। বাজার, ব্যাংক ইত্যাদি যেসব পাবলিক প্লেসে সংক্রমণ হতে পারে সেইসব জায়গা এড়িয়ে চলাই ভাল। কিন্তু আপনি সেই ক্ষেত্রে ঋণের জন্য কিভাবে আবেদন করবেন? না, জীবনের ঝুঁকি নিয়ে অনেক স্বপ্ন পূরণ হলেও, আপনার নিজের ব্যবসার স্বপ্নেও জীবনের ঝুঁকি আর থাকবেনা।

ব্যাংকে গিয়ে, কাগজ পত্র এক কাউন্টার থেকে আরেক কাউন্টার দৌড়োদৌড়ি করে আর ভাইরাসের হাতের নাগালে আর যেতে আপনাকে হবে না। একদিকে আপনার স্বপ্ন ও অন্যদিকে আপনার স্বাস্থ্য- উভয়ের কথা মাথায় রেখে দেশের অন্যতম রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাংক এসবিআই অর্থাৎ স্টেট ব্যাংক অফ ইন্ডিয়া নিয়ে এসেছে লোন নেওয়ার এক সহজ সুবিধা।

আরও পড়ুন – হার্ট অ্যাটাক সম্বন্ধে যাবতীয় কিছু তথ্য: হার্ট অ্যাটাক-কে ভয় নয়

আপনি যদি স্টেট ব্যাংকের গ্রাহক হয়ে থাকেন, আর যদি আপনি বিজনেস লোনের জন্য আবেদন করতে চান, তাহলে আপনি অতি সহজেই আবেদন করতে পারেন আপনার বাড়ি থেকে। আজ্ঞে হ্যাঁ, ঠিকই পড়েছেন। আপনি আপনার বাড়ির সুরক্ষিত পরিবেশে আরাম করে এখন ব্যবসায়ী লোনের জন্য আবেদন করতে পারেন। তার জন্য আপনাকে কিছু সহজ পদ্ধতি অনুসরণ করতে হবে।

আপনার রেজিস্টার করা রয়েছে এমন মোবাইল নম্বর থেকে এসবিআই ইয়োনো অ্যাপ থেকে লোনের জন্য আদেবন করা যেতে পারে। এই লোনের জন্য সুদের হার বার্ষিক ৯.৮৫ শতাংশ হবে। এই ক্ষেত্রে ব্যাংক কর্তৃপক্ষ জানিয়েছেন যে প্রসেসিং ফীও খুবি কম লাগছে এবং এর সবচেয়ে বড় সুবিধা হল গ্রাহকেরা সুবিধা সঙ্গে সঙ্গেই পেয়ে যাবেন। অতএব ডিজিটাল ব্যাংকিং-কে ভয় না পেয়ে জয় করুন।

লকডাউন হওয়ার দরুণ চাকরি হারিয়েছেন অনেকে। ব্যবসাই এখন একমাত্র রাস্তা। এদিকে যা সঞ্চিত আয় ছিল তাতে ব্যবসা দাঁড় করাতে পারবেনা। ভেঙে পড়বেন না। নিজের ওপর ভরসা রাখুন। ব্যবসায়ী লোন-এর মাধ্যমে আপনিও শুরু করতে পারেন আপনার নিজের ব্যবসা। পরিবারের সকলের মুখে ফুটিয়ে তুলতে পারেন সেই স্বস্তির হাসি। অথবা হতে পারে আপনি খুব ক্রিয়েটিভ। ছোটবেলা থেকেই আলাদা কিছু করে দেখানোর স্বপ্ন দেখেছেন কিন্তু মূলধনের অভাব রয়েছে। সেই ক্ষেত্রে আপনার স্বপ্ন জলাঞ্জলি দিয়ে বাকি সবার মত অন্যের পদতলে চাকরি করে নিজের স্বপ্ন চূর্ণবিচূর্ণ হওয়ার দিন শেষ। তাড়াতাড়ি বাণিজ্যিক ঋণের জন্য আবেদন করে ফেলুন আর রঙিন স্বপ্নকে বাস্তবে পরিণত করুন। কে বলতে পারে আপনার এই পরিকল্পনা কালকে আপনাকে মার্ক জুকেরবার্গের ন্যায় বিজনেস পার্সোনালিটি করে তুলতে পারবেনা? নিজের ওপর ভরসা রাখুন। আপনি ঠিক পারবেন। আপনি ঠিক জিতে যাবেন।

Leave a Reply

Top